The OFFICIAL page of the Daily Manab Zamin, the world's largest circulated Bengali tabloid daily.
Social Links
Pinned Post
This page created by Meetev team. If you are the owner of this page, please contact us through www.meetev.com/contacts or call 01615422244.
This page created by Meetev team. If you are the owner of this page, please contact us through www.meetev.com/contacts or call 01615422244.
0 Comments 0 Shares
Recent Updates
  • This page created by Meetev team. If you are the owner of this page, please contact us through www.meetev.com/contacts or call 01615422244.
    This page created by Meetev team. If you are the owner of this page, please contact us through www.meetev.com/contacts or call 01615422244.
    0 Comments 0 Shares
  • ১০ জনের ওসাসুনার কাছে ঘরের মাঠে হার বার্সেলোনার...
    ১০ জনের ওসাসুনার কাছে ঘরের মাঠে হার বার্সেলোনার...
    MZAMIN.COM
    ১০ জনের ওসাসুনার কাছে ঘরের মাঠে হার বার্সেলোনার
    লা লিগা জয়ের সম্ভাবনা আগেই শেষ হয়ে গিয়েছিল বার্সেলোনার। বৃহস্পতিবার ঘরের মাঠে মৌসুমের শেষ লীগ ম্যাচ খেলতে নেমেছিল বার্সেলোনা। দশ জনের ওসাসুনার কাছে কাতালানরা অপ্রত্যাশিতভাবে হেরে গেল ২-১ গোলে, তাও আবার শেষ মুহূর্তে গোল খেয়ে। লা লিগায় ন্যু ক্যাম্পে শেষটা হলো ভুলে যাওয়ার মতো। ২০১৯-২০ লা লিগায় ঘরের মাঠে বার্সেলোনার এটা প্রথম পরাজয়।পুরো ম্যাচে মেসিদের শরীরী ভাষা ছিল নেতিবাচক। ক্লান্ত বার্সেলোনার ফুটবলারদের পা যেন চলছিল না। সে সুযোগে বার্সেলোনাকে চেপে ধরে ওসাসুনা। ষোড়শ মিনিটে ডান পায়ের ভলিতে বক্সের ভেতর থেকে গোল করে ওসাসুনাকে এগিয়ে দেন হোসে আরনাইজ। ম্যাচে ফিরতে মরিয়া চেষ্টা চালিয়েছে বার্সেলোনাও। প্রথমার্ধে মেসির ফ্রিকিক লাগে পোস্টে। বিরতির আগে ৭টি শট নিয়ে গোলের দেখা পায়নি কাতালানরা।৬২তম মিনিটে বার্সেলোনা পায় কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা। ম্যাচে চতুর্থবার নেয়া ফ্রিকিকে জালের দেখা পান মেসি। চলতি আসরে আর্জেন্টাইন তারকার এটি ২৩তম গোল। এই মৌসুমে পাঁচবার সরাসরি ফ্রিকিক থেকে গোল করলেন মেসি, ইউরোপের শীর্ষ লীগে আর কারও এই কীর্তি নেই। গোলের পর মেসির উদযাপন অবশ্য বলছিল আগের ফ্রিকিকগুলো জালে না ঢুকায় কতটা হতাশ ছিলেন।৭৮ মিনিটে বার্সার ক্লেমেন্ত লংলেকে কনুই মেরে লাল কার্ড দেখেন ওসাসুনার এনরিক গ্যালেগো। কিন্তু দশজনের ওসাসুনাকে চেপে ধরতে গিয়ে উলটো বার্সা যোগ করা সময়ে খেয়ে বসে গোল। প্রথমটির মতো এবারও পিকেদের ভুলের মাশুল দিতে হয়েছে। নিজেদের অর্ধে বল হারিয়ে ফেলার পর গোল দিয়েছেন রবার্তো তোরেস। শেষ পর্যন্ত নিজেদের মাঠে ২-১ গোলে হেরেই মাথা নিচু করে ফিরতে হয়েছে মেসিদের।
    0 Comments 0 Shares
  • নিউ ইয়র্কে ফাহিম সালেহ হত্যার ঘটনায় আটক এক...
    নিউ ইয়র্কে ফাহিম সালেহ হত্যার ঘটনায় আটক এক...
    MZAMIN.COM
    নিউ ইয়র্কে ফাহিম সালেহ হত্যার ঘটনায় আটক এক
    রাইড শেয়ারিং অ্যাপ পাঠাও-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ফাহিম সালেহকে হত্যার ঘটনায় একজনকে আটক করেছে মার্কিন পুলিশ। বেশ কয়েকটি সূত্রের বরাত দিয়ে এ খবর দিয়েছে পিক্স ইলেভেন। তবে আটক ব্যক্তিকে এখনো গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি। তদন্তকারী দলগুলো এর আগে জানিয়েছিল, পেশাদার খুনির হাতেই খুন হয়েছেন ফাহিম সালেহ। নিউ ইয়র্কে ফাহিম সালেহর মরদেহের পরীক্ষক জানিয়েছেন, ঘাড়ে ও কাধে একাধিক ছুরিকাঘাতের মাধ্যমে ফাহিমকে হত্যা করা হয়।এখন পর্যন্ত ধারণা করা হচ্ছে, খুনি কালো পোশাক ও কালো মাস্ক পরে ছিলেন। তিনি ফাহিম সালেহর সঙ্গেই লিফটে ওঠেন এবং তার অ্যাপার্টমেন্টে প্রবেশ করেন। তাকে আগে থেকেই ফলো করা হচ্ছিল বলে মনে করছে নিউ ইয়র্ক পুলিশ। নিউইয়র্ক পুলিশের তদন্তকারীরা ফাহিমের অ্যাপার্টমেন্টে তল্লাশি চালিয়ে আলামত সংগ্রহ করে নানান তথ্য দিচ্ছেন। আশপাশের রাস্তা ও ভবনে যতো সিসি ক্যামেরা আছে, সেগুলোর ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে বলেও এনওয়াইপিডির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।আর তদন্ত কর্মকর্তাদের বক্তব্য, ফাহিমকে হত্যার পর টুকরো টুকরো করে মরদেহ সুটকেসে ভরে গুম করে ফেলার পরিকল্পনা ছিল খুনির। তবে খুনির কাজ শেষ হওয়ার আগেই ওই অ্যাপার্টমেন্টে প্রবেশের জন্য কেউ কলিং বেল বাজান। এতেই খুনি সবকিছু ফেলে ভবনের পেছনের দরজা ও সিঁড়ি ব্যবহার করে পালিয়ে যান। আপাতত ব্যবসায়িক কারণেই হত্যা বলে মনে করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে নাইজেরিয়ার শত্রুদের সন্দেহ করা হচ্ছে। মৃত্যুর আগে ফাহিমের বিরুদ্ধে নিউ জার্সির এক কারাকর্মীর করা মামলা চলমান ছিল। সালেহর কাজিন প্রথম তার মরদেহ দেখতে পান এবং পুলিশকে জানান। এ নিয়ে বুধবার একটি বিবৃতি দিয়েছে সালেহর পরিবার। এতে তারা হত্যাকারীকে পিশাচ আখ্যা দেন। তারা তাদের শোকের সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর জন্য সবার থেকে একাকিত্ব কামনা করেছেন।
    0 Comments 0 Shares
  • 0 Comments 0 Shares
  • 0 Comments 0 Shares
More Stories